ভূমি সংস্কার বোর্ড গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১st নভেম্বর ২০২১

ঢাকা নওয়াব এস্টেটের মামলা-মোকদ্দমা সংক্রান্ত তথ্য

ঢাকার নওয়াব এস্টেটের মামলা সংক্রান্ত বিবরণঃ

 

১৯০৭ সালে নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদুরের সমুদয় সম্পত্তি ১৮৭৯ সালের কোর্টে অব ওয়ার্ডস এ্যাক্ট এর ৬(ঙ) ধারার বিধান মতে কোর্ট অব ওয়ার্ডস এর ব্যবস্থাপনায় আসে। এই সংক্রান্ত The Eastern Bengal and Assam Gazette, August 10,1907 (পৃর্ব বঙ্গ এন্ড আসাম গেজেট ১০ ইং আগষ্ট, ১৯০৭) এ একটি গেজেট নোটিশ প্রকাশিত হয়। উক্ত গেজেট বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদুরের সমুদয় সম্পত্তির প্রকৃত মালিকানা স্বত্ব ও রক্ষণাবেক্ষণ কোর্ট অব ওয়ার্ডস অর্থাৎ তৎকালীন বোর্ড অব রেভিনিউ এর উপর ন্যস্ত হয়। তফসিল বর্ণিত সম্পত্তির কোন অংশ কোর্ট অব ওয়ার্ডস, তথা বোর্ড অব রেভিনিউ কর্তৃক কাহারও নিকট কস্মিনকালেও কোন প্রকার প্রজা পত্তননামা কিংবা অন্য কোনভাবে হস্তান্তর করা হয় নাই, কিংবা উহা কখনই প্রজাবিলি হয় নাই।

 

২। The Court of Wards of Eastern Bengal, Assam, Re-Presented by the Commissioner of Dhaka Division প্রথম পক্ষ এবং Nawab Sir Solimullah Bahadur C.S.I Son of Late Nawab Sir Ahsan Ullah Bahadur K.C.I.E দ্বিতীয় পক্ষ রেহান দাতাদ্বয় (Mortgagor) I The Secretary of state of India এর পক্ষে The Collector of Dhaka তৃতীয় পক্ষ রেহান গ্রহিতা (Mortgagee) এর মধ্যে বিগত ০৬/৮/১৯০৮ ইং তারিখে সম্পাদিত এবং ০৫/১২/১৯০৮ ইং তারিখে রেজিষ্ট্রিকৃত এক খন্ড রেহান দলিল (Mortgage Deed)  নং ৪১৪২ মূলে নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদুরের স্বত্ব মালিকানাধীন স্থাবর-অস্থাবর সকল সম্পত্তি কোর্ট অব ওয়ার্ডসের উপর ন্যস্ত হয়, যাহা ‘কোর্ট অব ওয়ার্ডস, ঢাকা নওয়াব এস্টেট’ হিসাবে পরিচিত। বর্তমানে কোর্ট অব ওয়ার্ডস ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ ভূমি সংস্কার বোর্ডের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে। নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদূরের স¦ত্ব মালিকানাধীন সম্পত্তিসহ স্থাবর-অস্থাবর সকল সম্পত্তির রক্ষনাবেক্ষন, শাসন সংরক্ষণ, ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনার দায় দায়িত্ব কোর্ট অব ওয়ার্ডস এর উপর ন্যস্ত হওয়ার কারণে বিগত সি.এস জরিপে তফসিল বর্ণিত নালিশী সম্পত্তিসহ অন্যান্য সম্পত্তি নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদূরের স¦ত্ব মালিকানাধীন সকল সম্পত্তির মালিক দখলকার হিসাবে তাঁর পক্ষে কোর্ট অব ওয়ার্ডস এর নাম শুদ্ধরূপে সি.এস রেকর্ডে লিপিবদ্ধ হয়।

 

৩। কোর্ট অব ওয়ার্ডস ঢাকা নওয়াব এস্টেট এর অন্তর্ভূক্ত সম্পত্তি পূর্বে বোর্ড অব রেভিনিউ এর তত্ত্বাবধানে ছিল, যাহা বর্তমানে ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ’ ভূমি সংস্কার বোর্ড এর তত্ত্বাবধানে কোর্ট অব ওয়ার্ডস ঢাকা নওয়াব এস্টেট পক্ষে ম্যানেজার এর মাধ্যমে রক্ষণাবেক্ষন, শাসন সংরক্ষণ, ব্যবস্থাপনা ও পরিচালিত হইয়া আসছে।

 

৪। ১৯৭৩ সালে চ. ঙ. ১২ ড়ভ ১৯৭৩ এর বিধান মোতাবেক বোর্ড অব রেভিনিউ এর দায়িত্ব  সরকারের উপর ন্যস্ত হয়। ১৯৮৯ সালের ‘ ভূমি সংস্কার বোর্ড আইন (আইন ২৩, ১৯৮৯)’ অনুযায়ী ১ জন চেয়ারম্যান ও অনধিক ২জন সদস্য সমন¦য়ে ভূমি সংস্কার বোর্ড গঠন করা হয়। উক্ত আইনের ৫নং ধারা মোতাকে ভূমি মন্ত্রণালয়ের ২৩/৫/৮৯ইং তারিখের ভূঃমঃ/শা-১৫ (ভূঃসঃবোঃ)-২৩১/৮৮/৪১১ নং আদেশ ও ১৪/০১/৯২ ইং তারিখের ভূঃমঃ/শা-১২-৩৯/৯০/২৫ নং আদেশমূলে ভূমি সংস্কার বোর্ড এর উপর কোর্ট অব ওয়ার্ডস এর ব্যবস্থাপনা ও তদারকির দায়িত্ব অর্পন করা হয়। বর্তমানে কোর্ট অব ওয়ার্ডস, ঢাকা নওয়াব এস্টেট ভূমি সংস্কার বোর্ডের নিয়ন্ত্রনে পরিচালিত হচ্ছে।

 

৫। রেহান দলিল (Mortgage Deed)  নং ৪১৪২ মূলে নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদুরের স্বত্ব মালিকানাধীন স্থাবর-অস্থাবর সকল সম্পত্তি কোর্ট অব ওয়ার্ডসের উপর ন্যস্ত হওয়ায় সি.এস রেকর্ডমূলে সম্পত্তি ব্যবস্থা করে থাকে। এস.এ এবং আর.এস রেকর্ডের সময় বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকগণের মাধ্যমে এ সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা হত। তাঁদের সময় এস্টেটের জনবল কম থাকায় অনেক জমির রেকর্ড বিভিন্ন ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান, খাস, বন বিভাগের নামে প্রণীত হয়। পরবর্তী ভূমি মন্ত্রণালয়ের ২০০৬ সনের পরিপত্র বলে সর্বশেষ রেকর্ডে ঢাকা নওয়াব এস্টেটের নামে প্রায় ৭০০-৭৫০ একর জমি রেকর্ড হয়েছে। হাল রেকর্ডে কোর্ট অব ওয়ার্ডস, ঢাকা নওয়াব এস্টেটের নামে হওয়ায় দেওয়ানী ও ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনাল এবং উচ্চ আদালতে প্রায় ৭০০ এর অধিক মামলা বিচারাধীন। উক্ত মামলাসমূহ বিজ্ঞ প্যনেল আইনজীবীদের মাধ্যমে আইনগত প্রতিদ্বন্দিতা করা হচ্ছে।

 


Share with :

Facebook Facebook